Breaking News
Home / হেলথ টিপস / বিশ্বের সবচেয়ে পুষ্টিকর খাবার – পুষ্টিকর খাবারের তালিকা

বিশ্বের সবচেয়ে পুষ্টিকর খাবার – পুষ্টিকর খাবারের তালিকা

বিশ্বের সবচেয়ে পুষ্টিকর খাবার – পুষ্টিকর খাবারের তালিকা – আদর্শ খাবার বলতে কি কিছু আছে বা এমন কোন খাবার আছে যা খেলে আমাদের দেহের সব ধরনের পুষ্টির চাহিদা পূর্ন হয়? এমন কোন খাবার আসলে নেই।

তবে কিছু খাবার রয়েছে যা এত বেশি পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ যেগুলোকে ব্যালেন্স ফুড বলা হয়।অর্থাৎ এইগুলো আমাদের দেহের বেশিরভাগ পুষ্টি যোগান দিতে সক্ষম।বিশ্বের ১ হাজারটি খাবারের মধ্য থেকে সবচেয়ে বেশি পুষ্টিগুন রয়েছে এমন ১০০ টি খাবারের তালিকা করেছেন যুক্তরাজ্যের গবেষকরা।জানতে হবে এর আজকের আয়োজনে প্রকাশ করা হচ্ছে এমন কিছু খাবার।

বিশ্বের সবচেয়ে পুষ্টিকর খাবার – পুষ্টিকর খাবারের তালিকা

১- অ্যামন্ড বা আখরোট

অ্যামন্ড বা আখরোট

এই দুই ধরনের বাদাম স্থান পেয়েছে সবচেয়ে পুষ্টিগুন খাবারের তালিকায়।একশটি খাবারের তালিকায় শীর্ষে রয়েছে অ্যামন্ড।ফ্যাটি এসিডের সবচেয়ে ভালো উৎস বলা হয়েছে অ্যামন্ডকে।হার্ট ভালো রাখতে এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে রাখতে সহায়তা করে অ্যামন্ড।

২- আতা ফল

আতা ফল

তালিকায় ২য় শীর্ষ খাবার আতা ফল।এতে রয়েছে প্রাকৃতিক চিনি, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি১, ভিটামিন বি২, এবং পটাসিয়াম।

৩- বিভিন্ন ধরনের সামুদ্রিক মাছ

সামুদ্রিক মাছ

সামুদ্রিক কই এবং পোয়া মাছ সবচেয়ে উচ্চমাত্রার পুষ্টিগুন খাবারগুলোর মধ্যে একটি।এছাড়া কোড মাছ, নীল পাখনার টুনা, বিভিন্ন ধরনের স্যামন, ইল, সামুদ্রিক চিতল বা ফ্যাল্ট ফিস পুষ্টিগুনের জন্য এই তালিকায় স্থান করে নিয়েছে।

৪- চিয়া সিড বা তিসি বীজ

চিয়া সিড বা তিসি বীজ

বিভিন্ন ধরনের ডায়েটারি ফাইবার, প্রোটিন, ভিটামিন, লিনোলেনিক এসিড, ও ফেনোলিক এসিড রয়েছে চিয়া সিড বা তিসি বীজে।

৫- মিষ্টি কুমড়া বা মিষ্টি কুমড়া বীজ

মিষ্টি কুমড়া এবং এর বীজ আয়রন এবং ম্যাঙ্গানিজের ভাল উৎস।কাঁচা কিংবা পাকা যেটিই হোক আর যে জাতের হোক না কেন মিষ্টি কুমড়ার পুষ্টিগুনের কোন কমতি নেই।

৬- শুকনো ধনিয়াপাতা বা ধনিয়াপাতা গুড়ো

শুকনো ধনিয়াপাতা, তাজা ধনিয়াপাতা কিংবা ধনিয়াপাতার ডাটা পুরো গুল্মটিই আসলে পুষ্টিগুনে ভরপুর।এতে থাকে ক্যারোটিনয়েড যা হজমে সমস্যা, কাশি, বুকে ব্যথা এবং জ্বর উপশমে সাহায্য করে।

৭- মটরশুটি ও বরবটি

প্রোটিন, কার্বোহাইড্রেট, ফাইবার, মিনারেল এবং দ্রবনীয় ভিটামিন রয়েছে মটরশুটিতে।বরবটি সবজি এবং এর বীজ বা ডাল সব কিছুতেই রয়েছে পুষ্টি।উচ্চ মাত্রায় কার্বোহাইড্রেট এবং প্রোটিন রয়েছে বরবটিতে।এছাড়া বিভিন্ন রকম সীমের বিচির কথাও উঠে এসেছে এই তালিকায়।

৮- পাতাসহ পেঁয়াজ

পাতাসহ বিভিন্ন ধরণের পেঁয়াজ, ডগাসহ ফুলে প্রচুর ভিটামিন রয়েছে।পেঁয়াজ ভিটামিন এ এবং ভিটামিন কে এর ভাল উৎস।এছাড়া পেঁয়াজ পাতায় অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে।

৯- লাল ও সবজ বাধাকপি

সব ধরণের বাধাকপিই পুষ্টিগুনে ভরপুর তবে লাল বাধাকপিতে পুষ্টিগুন বেশি। এছাড়া রয়েছে চায়নিজ বাধাকপি যা একটু লম্বাটে ধরণের হয় এতে ক্যালোরির পরিমান অনেক কম থাকে।

১০- পালং শাক

হিমায়িত পালং শাক মূলত সালাদ তৈরিতে ব্যবহার করা হয়। হিমায়িত পালং শাকে রয়েছে ম্যাগনেসিয়াম, ফলেট, ভিটামিন এ, বেটা ক্যারোটিন, জিজ্যানথিন এর ভাল উৎস।হিমায়িত পালং শাক পুষ্টি নষ্ট হওয়া রোধ করে এবং পুষ্টিগুন ধরে রাখে।

এই জন্যই তাজা পালং শাকের তুলনায় এতে বেশি পুষ্টি থাকে বলে ধারণা করা হয়।তবে তাজা পালং শাকও কম যায় না ভিটামিন এ, ক্যালিসিয়াম, ফসফরাস এবং আয়রন থাকে প্রচুর পরিমাণে।এতে এতই ভালো পুষ্টিগুন রয়েছে যে সেরা খাবারের তালিকায় দুইবার করে উঠে এসেছে পালং শাক।

Check Also

খিদে লাগলেও খাবেন না

খিদে লাগলেও খাবেন না যেসব খাবার

খিদে লাগলেও খাবেন না যেসব খাবার – গোগ্রাসে খাওয়া এই শব্দটির সাথে অনেকেই পরিচিত। প্রচণ্ড …